টাঙ্গাইল জেলা নিয়ে জানা অজানা কিছু তথ্য

টাঙ্গাইল বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চলে অবস্থিত একটি জেলা।এটি ঢাকা বিভাগে অবস্থিত এবং উত্তরে ময়মনসিংহ জেলা,
পূর্বে জামালপুর ও শেরপুর, দক্ষিণে মানিকগঞ্জ এবং পশ্চিমে রাজবাড়ী জেলার সীমানা।
জেলাটি প্রায় ৩,৪১৪ বর্গ কিলোমিটার (১,৩১৯ বর্গ মাইল) এলাকা জুড়ে রয়েছে।

টাঙ্গাইল জেলা বাংলাদেশের ধামাইমণ্ডি বিভাগের একটি জেলা।
টাঙ্গাইল জেলাটির সময়সীমা জানা নেই, কারণ আমার জ্ঞানের উপর আপডেট হয়নি।
তবে, আপনি টাঙ্গাইল জেলা সম্পর্কে নিম্নলিখিত তথ্যগুলি জানতে পারেন:

টাঙ্গাইল জেলা নিয়ে জানা অজানা তথ্য

১.অবস্থান: টাঙ্গাইল জেলাটি ঢাকার উত্তরে অবস্থিত এবং রাজশাহী বিভাগের অংশের অন্তর্ভুক্ত।

২.প্রশাসনিক অঞ্চল: টাঙ্গাইল জেলাটি ১১০১ বর্তমান উপজেলার একটি অংশ।
এছাড়াও জেলাটির অন্যান্য উপজেলার অন্তর্ভুক্ত অঞ্চলগুলি হলো বাসাইল, ধনবাড়ি, গোপালপুর,
তালশহর, কালিহাতী, মির্জাপুর, নাগরপুর, সখিপুর, বাসাইল, ভূয়াপুর ও গজিপুর।

৩.জনসংখ্যা: টাঙ্গাইল জেলার জনসংখ্যা বৃহত্তম জেলাগুলির মধ্যে একটি।
২০১১ সালের জনগণনায় জেলার জনসংখ্যা ছিল প্রায় ৩,৮১,২৬৬।

৪.ঐতিহ্য ও পর্যটন: টাঙ্গাইল জেলা প্রাচীন ঐতিহ্য এবং সংস্কৃতির জন্য পরিচিত।
এখানে বিভিন্ন প্রাচীন মন্দির, মন্দিরগুলি, গোপাল জামেদারের বাড়ি, রাসা মন্দির,
ব্রিটিশ সময়ের বাড়ি ইত্যাদি অন্যতম দর্শনীয় স্থান। টাঙ্গাইলের খাদ্য ও শিল্প প্রস্তুতি অত্যন্ত প্রশংসিত।

৫.ভূগোল: টাঙ্গাইল এর সমতল এবং উর্বর জমি দ্বারা চিহ্নিত করা হয়েছে,কারণ এটি গঙ্গা-ব্রহ্মপুত্র প্লাবনভূমিতে অবস্থিত।
জেলাটি ধলেশ্বরী, ঝিনাই এবং বংশী নদী দ্বারা ছেদ করেছে, যা এর কৃষি উৎপাদনে অবদান রাখে।

টাঙ্গাইল জেলা সম্পর্ক নিয়ে তথ্য

৬. প্রশাসন: টাঙ্গাইল জেলা ১২টি উপজেলা (উপজেলা) এবং ২৪৬টি ইউনিয়নে বিভক্ত।
জেলার প্রধান শহর ও প্রশাসনিক সদর দপ্তরকে টাঙ্গাইলও বলা হয়।

৭.অর্থনীতি: টাঙ্গাইলে কৃষি প্রাথমিক অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড, এই অঞ্চলের প্রধান ফসল হল ধান।
চাষকৃত অন্যান্য ফসলের মধ্যে রয়েছে পাট, গম, আলু, আখ এবং বিভিন্ন শাকসবজি।
টাঙ্গাইল তার টেক্সটাইল শিল্পের জন্য বিখ্যাত, বিশেষ করে এর তাঁত এবং বস্ত্র বয়ন ঐতিহ্য।

৮.সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য: টাঙ্গাইলের একটি সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য রয়েছে এবং এর তাঁত বস্ত্র,
যা “টাঙ্গাইল শাড়ি” নামে পরিচিত, স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক উভয় ক্ষেত্রেই অত্যন্ত মূল্যবান।
জেলাটি তার ঐতিহ্যবাহী লোকসংগীত, নৃত্য এবং শিল্পকলার জন্যও পরিচিত, যা স্থানীয় সংস্কৃতির একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ।

৯.শিক্ষা: টাঙ্গাইল জেলায় প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে শুরু করে কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত অসংখ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। কয়েকটি উল্লেখযোগ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে টাঙ্গাইল সরকারি কলেজ,টাঙ্গাইল সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় এবং মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

১০.পর্যটন আকর্ষণ: টাঙ্গাইল দর্শনার্থীদের জন্য বেশ কয়েকটি পর্যটন আকর্ষণ রয়েছে।
কিছু উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থানের মধ্যে রয়েছে আতিয়া মসজিদ (১৭ শতকের একটি ঐতিহাসিক মসজিদ),
মধুপুর জাতীয় উদ্যান (একটি বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্য যা এর বৈচিত্র্যময় উদ্ভিদ এবং প্রাণীজগতের জন্য পরিচিত),
এবং যমুনা নদীর তীর, যেখানে কেউ প্রাকৃতিক দৃশ্য উপভোগ করতে পারে। এবং নৌকা যাত্রা।

১১.যাতায়াত ব্যবস্থা: টাঙ্গাইল সড়ক ও রেল নেটওয়ার্ক দ্বারা সু-সংযুক্ত।
টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়ক এবং ঢাকা-টাঙ্গাইল-ময়মনসিংহ মহাসড়ক হল জেলার মধ্য দিয়ে যাওয়া প্রধান সড়ক।
টাঙ্গাইল রেলওয়ে স্টেশন একটি গুরুত্বপূর্ণ রেল হাব, যা জেলার সাথে বাংলাদেশের অন্যান্য প্রধান শহরগুলির সাথে সংযোগ স্থাপন করে।

Read More

মন খারাপের উক্তি, স্ট্যাটাস ও ক্যাপশন